Alapon

সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যবহৃত বিভিন্ন ইমেজের মাপ



সোশ্যাল মিডিয়াতে ছবি ব্যবহারের ক্ষেত্রে কভার, টাইমলাইন, প্রোফাইল ফটো ইত্যাদির আদর্শ মাপ কেমন হবে এ নিয়ে আমাদের বার বার ঝামেলায় পড়তে হয়। তবে আর নয়, এখন থেকে আপনিও হয়ে উঠতে পারেন সোশ্যাল মিডিয়ার কন্টেন্ট স্পেশালিস্ট।

এছাড়াও ইউটিউবে ভিডিও আপলোডের নির্দিষ্ট সাইজ, ফরম্যাট ইত্যাদিও জেনে নিতে পারবেন এই পোস্ট থেকে। সোশ্যাল মিডিয়ার ইমেজ সাইজ নিয়ে বার বার গুগোল সার্চ ও নানা মুনির নানা মতের পাল্লায় আপনাকে আর পড়তে হবেনা।

ফেসবুক:
ফেসবুক প্রোফাইল পিকচার: আমরা সাধারণত ফেসবুকে প্রফাইল পিকচার ১৮০ X ১৮০ পিক্সেল দেখতে পাই। কিন্তু আপলোড করা যায় অনেক বড় সাইজও যেমন আপনি চাইলে ৫০০X৫০০ পিক্সেল স্কয়ার সাইজ ফটো আপলোড করতে পারেন আবার ইঞ্চিতে হলে ১০X ১০ ইঞ্চিও আপলোড করতে পারেন। যেহেতু স্কয়ার আপলোড করলেও গোলাকৃতি দেখাবে তাই খেয়াল রাখতে হবে যেন মুল অংশ বৃত্তের ভেতরে থাকে।



ফেসবুক কভার ফটো মাপ ৮২৮ x ৩১৫ পিক্সেল
আপনারা চাইলে এই অনুপাতে দ্বিগুণ করতে পারেন যেমন ১৬৫৬X ৬৩০ পিক্সেল



ফেসবুক টাইমলাইন ফটো (ওয়াইড) মাপ ১২৮০ X ৭১৭ পিক্সেল
ফেসবুক টাইমলাইন ফটো (ওয়াইড) (১৬X৯ ইঞ্চি)
ফেসবুক টাইমলাইন ফটো (স্কয়ার) মাপ ১৯২০ X ১৯২০ পিক্সেল(১৬X১৬ ইঞ্চি)



টুইটার
টুইটার প্রোফাইল ইমেজ: মাপ ৪০০X৪০০ পিক্সেল
টুইটার হিডার ইমেজ: মাপ ১৫০০X৫০০



টুইটার টুইট পিকচার:
13x8 inch ও আপলোড করতে পারেন।
এছাড়া ৪৪০X২২০ পিক্সেল
১০২৪X৫১২ ও আপলোড করা যায়
লিংকের ছবি দেখায় ৫২০ x ২৫৪ পিক্সেল


ইনস্টাগ্রাম:
প্রোফাইল পিকচার: ১১০ x ১১০ পিক্সেল
ইনস্টাগ্রামে শুধমাত্র স্কয়ার সাইজের ফটো বা ডিজাইন আপলোড করা যায় যেমন
ছবি আপলোড: ১০৮০ x ১০৮০ পিক্সেল বা ১২৮০ x ১২৮০ পিক্সেল, ১০x১০ ইঞ্চি, ১৬x১৬ ইঞ্চি ইত্যাদি



ইউটিউব:
চ্যানেল আর্ট বা কভার: ২৫৬০ x ১৪৪০ পিক্সেল



দেখাবে এমন:


ইউটিউব চ্যানেল আইকন: মাপ ৮০০X৮০০ পিক্সেল (দেখায় ৯৮X৯৮)
আপনারা যেকোনো স্কয়ার সাইজ আপলোড করতে পারেন



ভিডিও আপলোড:
ইউটিউবে সাধারণ ওয়াইড ভিডিও আপলোড করা হয়। যেমন
৬৪০ X ৩৬০ পিক্সেল
১২৮০X ৭২০ পিক্সেল HD
১৯২০X ১০৮০ পিক্সেল Full HD
৩৮৪০ X ২১৬০ UHD 4K
৭৬৮০ X ৪৩২০ UHD 8K





ভিডিও থাম্বনেইল:
ইউটিউব ভিডিও থাম্বনেইল সাধারণত ১২৮০X ৭২০ পিক্সেল অথবা
১৯২০X ১০৮০ পিক্সেল হয়ে থাকে আর ফাইলসাইজ ২ মেগাবাইটের ভেতরে থাকতে হয়।



আরও কিছু পরিভাষা:
১. রেজল্যুশন হল মূল মাপ যেমন ১২৮০X৭২০ পিক্সেল
২. আসপেক্ট রেশিও হল ভিডিওর দৈর্ঘ্য প্রস্থের অনুপাত যেমন ৭২০ পিক্সেল রেজল্যুশনের ভিডিওর আসপেক্ট রেশিও হল ১২৮০X৭২০ পিক্সেল
৩. বিটরেট হল ভিডিওর এক সেকেন্ডে কতটি বিট ডাটা থাকবে।
৪. ফ্রেমরেট হল ভিডিওর ১ সেকেন্ডে কতটি ছবির ফ্রেম আছে। প্রতিটি ভিডিও মূলত চলমান ছবির সমষ্টি পরপর এক সেকেন্ডে কতটি ছবি শো হল ্এটাই ভিডিওর ফ্রেমরেট। ভিডিওতে যত বেশি ফ্রেমরেট তত মসৃভাবে চলবে তবে সাধারণ ভিডিওর ফ্রেমরেট ২৯.৯৭ বা ৩০ এফপিস (fps) হয় আর
৫. সাপোর্টেড ভিডিও কোডে/ফরম্যাট/কন্টেইনার:
(ইউটিউবে জনপ্রিয় ভিডিও Codec হল H264 (MPEG-4 AVC) এবং এর কন্টেইনার/এক্সটেনশন হল .MP4)

তথ্যসূত্র: ‍গুগোল সাপোর্ট ও অন্যান্য

পঠিত : ৪১২৯ বার

মন্তব্য: ০