Alapon

পরকীয়াঃ অতঃপর সাদিয়া

এবারের ঈদে সাদিয়া কোনো নতুন জামা কেনেনি, বাসায় হয়নি অন্যান্য ঈদের ন্যায় খাবারের আয়োজন। শুয়ে শুয়ে দিনটাকে সে কোনো রকম পার করে দিল। ঈদের দিনটাকে সে এভাবে কখনো কল্পনা করতে পারেনি। দিন চলে যায়, এর মধ্যে সাদিয়া কয়েকবার আত্মহত্যার ব্যর্থ চেষ্টা করে। পরিবারের সদস্যদের তৎপরতায় সেটা সম্ভব হয়ে উঠেনি।
মাসখানেক পর সাদিয়া কিছুটা স্বাভাবিক হয়, খালাতো ভাইয়ের বিয়েতে গিয়ে নিজেকে কিছুটা স্বাভাবিক করার চেষ্টা করে। নিজের কষ্টগুলোকে ভুলতে গিয়ে আবারো সে শুরু করে নতুন কিছু। শুরু হয় মোবাইল এবং ফেসবুকে কিছু অসম খেলা।
যে ভুল সে এর আগেও করে তার কিছুটা সূচনা তার মা-বাবার অধিক আদর থেকে। ছোটবেলা থেকেই সাদিয়া অনেকটা চেতনাধারী ধাঁচের। সবার সাথে হৃদ্যতার সম্পর্ক রাখতে সে ব্যাকুল হয়ে থাকত। বিশেষ করে তার বিভিন্ন সম্পর্কের বোনের স্বামীদের সাথে। সে প্রথমত পরিচয় গোপন করে তাদের সাথে মোবাইলে ফোনে কথা বলত। দুলাভাইগণ তার ফাঁদে পা দিত, ঘন্টার পর ঘন্টার প্রেম-প্রেম খেলা চলত। কিন্তু তার এই নোংরা অভ্যাসের কথা বুঝতে পেরে একজন বাদে বাকীদের কেউ আর সে রাস্তায় আর হাঁটেনি।
সাদিয়ার চাচাতো বোন লিপি। স্বামী সংসার আর বাচ্চাদের নিয়ে তার আনন্দের শেষ নেই। ছোট চাচার পরিবার ও তার ছেলে-মেয়েদের সাথে তার সম্পর্ক বেশ মধুর। লিপির স্বামী পেশায় একজন ডাক্তার, প্রায়ই সাদিয়াদের বাসায় লিপিকে নিয়ে বেড়াতে আসে।
সাদিয়া তার নিকটবর্তী বিভাগীয় শহরে কোচিং এ টিচার হিসেবে ক্লাস নিত। ভালো সম্পর্কের দরুণ কোচিং এ ক্লাস শেষ করে ডাক্তার দুলাভাই এর সাথে মাঝে মাঝে দেখা করত সে। এভাবেই একসময় তাদের মাঝে গড়ে ওঠে অবৈধ সম্পর্ক।
কিছুদিন পর সে সম্পর্ক গোপন বিয়ের দিকে গড়ায়। অবৈধ এই সম্পর্কের পথে সবচেয়ে বড় বাঁধা ছিল দু’জনের পরিবার। শুরুর দিকে তাদের চলাফেরাকে খারাপ চোখে দেখতনা কেউই। তারা গোপনে মিলিত হতে থাকলেও একদিন সত্যি সত্যি ডাক্তার দুলাভাই নিজ পরিবারের সদস্যদের কাছে ধরা পড়ে যায়।
উত্তম-মধ্যমের এক পর্যায়ে ডাক্তার সাহেব সবকিছু স্বীকার করলেও সাদিয়া কোনোভাবেই স্বীকার করেনি। পরবর্তীতে পারিবারিক সালিশে কাবিননামা দেখালে তখন তার মেনে না নেয়ার কোনো উপায় রইল না। ঘটে যায় এক বিশাল বড় অঘটন। অবশেষে তালাকনামা। কিন্তু তারপরও সাদিয়া আর তার ডাক্তার দুলাভাইয়ের সম্পর্ক চলতে থাকে। ভালোবাসার প্রমাণ দিতে গিয়ে সাদিয়া তার গোপন মূহুর্তের কিছু ভিডিও এবং স্থিরচিত্র মেইল করতে থাকে তার অবৈধ স্বামীকে। ডাক্তার দুলাভাই এই ছবিগুলো নিয়ে শুরু করে এক নতুন নাটক!!!!!!!!!!!
অবৈধ এই সম্পর্কের জন্য নষ্ট হতে থাকে পারিবারিক বন্ধনগুলো। নেতিবাচক প্রভাব পড়তে থাকে লিপি আর সাদিয়ার বাবার বংশের ভাইদের মাঝে। এক পর্যায়ে সাদিয়ার বাবা এবং তার পরিবার  বংশ থেকে একঘরে হয়ে যায়। সন্তানকে নিয়ে স্বপ্ন দেখা সাদিয়ার মা-বাবা যে আজ বড়ই একা। 

পঠিত : ১৭১৬ বার

মন্তব্য: ০