Alapon

আফগানিস্তান থেকে ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে মার্কিন সৈন্য



তালেবানদের সঙ্গে চুক্তি মতো আফগানিস্তানে মার্কিন সেনা সংখ্যা ৮,৬০০-তে নামিয়ে আনা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের একজন শীর্ষ জেনারেল বৃহস্পতিবার এ কথা বলেছেন। তবে যুদ্ধ অবসানের জন্য পরিকল্পনার অন্যান্য দিক কিছুটা সমস্যায় পড়েছে এবং সেগুলো বাস্তবায়নে দেরি হচ্ছে।

দুই দশকব্যাপী যুদ্ধ তুঙ্গে থাকার সময় এক পর্যায়ে আফগানিস্তান এক লাখের বেশি মার্কিন সেনা মোতায়েন করা হয়েছিলো। এর বাইরে ন্যাটো জোটের অধীনে ৪০টিরও বেশি দেশের সেনা ছিলো সেখানে। আফগান যুদ্ধে সামরিক জয় পাওয়া সম্ভব নয় বলে সব পক্ষ স্বীকার করার পর সাম্প্রতিক সময়ে ওই সংখ্যা ব্যাপকভাবে কমে আসে। যুদ্ধের বদলে আলোচনার মাধ্যমে নিষ্পত্তির পথ ধরে যুক্তরাষ্ট্র। তবে এ পথও বার বার বাধগ্রস্ত হয়।

ফেব্রুয়ারিতে যখন তালেবানের সঙ্গে চুক্তি হয় তখন আফগানিস্তানে ১২,০০০ মার্কিন সেনা ছিলো। তাদেরকে ধাপে ধাপে প্রত্যাহার করা হবে বলে চুক্তিতে উল্লেখ ছিলো। এতে তালেবান ও আফগান সরকারের মধ্যে বন্দি বিনিময় ও দেশের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নির্ধারণের জন্য আন্তঃআফগান আলোচনা শুরু কথাও বলা হয়।

আমেরিকান কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, চুক্তি বাস্তবায়ন যাতে ব্যাহত না হয় সে জন্য সহিংসতা ৮০% কমিয়ে আনা হবে বলে তালেবানরা রাজি হয়েছে।

মার্কিন সেন্ট্রাল কমান্ডের কমান্ডার জেনারেল ফ্রাঙ্ক ম্যাকেঞ্জি বলেন, আমরা চুক্তির আমাদের অংশ পালন করেছি। আমরা ১৩৫ দিনের মধ্যে সেনা সংখ্যা সাড়ে আট হাজারের কাছাকাছি নিয়ে আসবো বলে রাজি হয়েছিলাম। এখন সেই সংখ্যা হয়েছে।

অ্যাসপিন স্ট্রাটেজি গ্রুপ আয়োজিত এক ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্যকালে জেনারেল ম্যাকেঞ্জি আরো বলেন, ১৪ মাসের মধ্যে পুরোপুরি প্রত্যাহারের বিষয়টি তালেবানের উপর নির্ভর করবে। তাদেরকে দেখাতে হবে যে আল-কায়দার সঙ্গে তাদের কোন সম্পর্ক নেই, সহিংসতা কমিয়ে এনে আফগান সরকারের সঙ্গে তারা জড়িত হয়েছে এবং ক্ষমতা ভাগাভাগি প্রশ্নে সরাসরি আলোচনা শুরু করেছে।

তবে, এখন শুধু সেনা প্রত্যাহার নিয়ে মার্কিনীরা ভাবছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। সবকিছু নির্ভর করছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের উপর।

আগামী নভেম্বরে নির্বাচনের মুখোমুখি হতে যাওয়া ট্রাম্প সেনাদের ফিরিয়ে আনার ইচ্ছা গোপন রাখছেন না। কিন্তু জেনারেলদের আশঙ্কা এতে আফগানিস্তানে নৈরাজ্য দেখা দেবে। তখন দেশটি আবারও সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর নিরাপদ আশ্রয়ে পরিণত হবে।

পঠিত : ১২৫ বার

ads

মন্তব্য: ০