Alapon

সোসাইটিতে কীভাবে সমকামিতার প্রসার ঘটে...?


সমকামীতা মোকাবিলা করতে হলে আমাদের আগে বুঝতে হবে সমকামীতা সোসাইটিতে কীভাবে প্রসার করে। আমরা নিজেদের মুসলিম দাবি করি, কিন্তু আমার ভালোবাসা তাদের প্রতি নিবেদিত যারা ইসলামের মূল্যবোধকে আক্রমণ করছে। অশ্লীলতাকে সোসাইটিতে নরমালাইজ করেছে। যিনা ও সমকামকে যারা প্রমোট করে তারা হঠাৎ একদিনে আবির্ভূত হয়নি। আর্টের নামে সোসাইটিতে এসব নরমালাইজ হয়েছে।

আমরা আল্লাহ তায়ালার ক্ষমা ও পুরুষ্কার প্রত্যাশা করি, অথচ হুমায়ুন আহমেদ, মোস্তফা সারওয়ার ফারুকী আমাদের প্রিয়। হুমায়ুন আহমেদের দুটি উদাহরণ দেই, ঘেটুপুত্র কমলায় সে সমকামীতাকে প্রাচীণ বাংলার ইতিহাসের অংশ হিসেবে দেখিয়েছে এবং সমকামী হিসেবে এমন একজন লোককে দেখিয়েছে যে খাওয়ার আগে বিসমিল্লাহ পড়ে। যে সুবহানাল্লাহ, আল্লাহু আকবার তাসবীহ পড়ে। আজিব, এরপরেও হুমায়ুন তাদের প্রিয়।

হুমায়ুনের উপন্যাস পড়তাম প্রায় দশ বছর আগে। একটি উপন্যাসে এক মেয়েকে বেশ স্মার্ট হিসেবে উপস্থাপন করা হয়, যে হাসতে হাসতে ক্যামেরার সামনে উলঙ্গ হয়ে যায়। হায় মুসলমান! এরপরও হুমায়ুন তোমাদের প্রিয়। তার পেছনে বহু যুক্তি থাকবে, আর্গুমেন্ট থাকবে সে সাহিত্য করেছে, বাংলাদেশের ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি ও নাটককে অনেকদূর নিয়ে গেছে। কিন্তু গোলামের জাত এটা বুঝে না, পরকালে এই সাহিত্য, ফিল্ম ও নাটক কোনো কাজে আসবে না। জীবন কারও অর্ধেক শেষ, কারও দুই তৃতীয়াংশ। মৃত্যুর সময় কঠিন যন্ত্রণা আমাদের জন্য অপেক্ষা করছে।

কুরআন ও হাদিসে সাকারাতুল মাউত সম্পর্কে বিবরণ এসেছে। আল্লাহ তায়ালা বলেন,
وَجَاءتْ سَكْرَةُ الْمَوْتِ بِالْحَقِّ ذَلِكَ مَا كُنتَ مِنْهُ تَحِيدُ
মৃত্যুযন্ত্রণা অবশ্যই আসবে। এ থেকেই তুমি পালাতে চাচ্ছিলে। [ সুরা ক্বাফ : ১৯ ]

সাকারাতুল মাউত অর্থ মৃত্যুযন্ত্রণা। এটা খুবই অসহনীয় যন্ত্রণা। রাসূল সা. নিজে এ যন্ত্রনা ভোগ করেছেন।

মৃত্যুর ফেরেশতা যখন উপস্থিত হয়, মৃত্যুপথযাত্রী তাকে দেখতে পান। রাসূল সা. আমাদের বলেন, এর ব্যপ্তি হবে মিলি সেকেন্ডের মতো। যখন ব্যক্তি জীবিত থাকবে। ফেরেশতাকে তার সামনে উপস্থিত দেখতে পাবে। মৃত্যুপথযাত্রী ব্যক্তি তখনো এই দুনিয়ার অংশ। কিন্তু মৃত্যুর ফেরেশতা উপস্থিত এবং আপনি তা দেখতে পাবেন। আল্লাহ তাআলা এ সময় সম্পর্কে কুরআনে বলেন,
لَقَدْ كُنتَ فِي غَفْلَةٍ مِّنْ هَذَا فَكَشَفْنَا عَنكَ غِطَاءكَ فَبَصَرُكَ الْيَوْمَ حَدِيدٌ

তুমি তো এই দিন সম্পর্কে উদাসীন ছিলে।এখন তোমার কাছ থেকে পর্দা সরিয়ে দিয়েছি। ফলে আজ তোমার দৃষ্টি সুতীক্ষ্ন। [ সুরা ক্বাফ ৫০:২২ ]

অর্থাৎ, তোমরা এ থেকে পলায়ন পলায়ন করতে চেয়েছিলে। তোমরা তা থেকে অমনোযোগী ছিলে। তুমি আজ সত্যিকারের দুনিয়া দেখতে পাবে। তা হলো পরবর্তী জীবন। তুমি আজ সব কিছুই দেখতে পাবে।

অতএব যখন মৃত্যুর ফেরেশতা দৃশ্যমান হবে এবং আপনি এই পৃথিবীতেই আছেন। রাসূল সা. বলেন, তখনই তাওবার দরজা বন্ধ হয়ে যাবে। আপনি যখন মৃত্যুর ফেরেশতাকে দেখবেন তারপর আর তওবার কোনো সুযোগ নেই। তখন অনুশোচনার এবং মুক্তির সকল আশা শেষ।

- সাইফুল্লাহ

পঠিত : ১৪৩ বার

ads

মন্তব্য: ০