Alapon

একুশে বইমেলার দুরাবস্থার জন্য দ্বায় কার...?



একুশে বইমেলা শুরু থেকেই জমছিলো না। শুরুর দিন থেকেই মেলাটাকে ‘মরা মরা’ মনে হচ্ছিলো। এবার মেলার সময় কমিয়ে এনে মেলাটাকে কফিনে তোলা হয়েছে। এখন শুধু আনুষ্ঠানিকভাবে মেলা বন্ধ ঘোষণা করে কফিনে পেরেক মারা বাকি! আর মেলার এই দূরবস্থার জন্য সকলে বাংলা একাডেমিকে দুষছে। কিন্তু বাস্তবিক অর্থে বাংলা একাডেমির দোষ কতখানি, তা কেউই নির্মোহভাবে বিবেচনা করছে না।

সত্যি বলতে, বাংলা একাডেমি শুরু থেকেই মেলা করার বিরুদ্ধে ছিল। যতোদূর জানি, বাংলা একাডেমির ডিজি সাহেবের বিদায় বেলা অত্যাসন্ন। তাই বিদায় বেলায় এমন একটা ‘ম্যাড়ম্যাড়া’ মেলা করে ইতিহাসের অংশ হতে চাননি! তাই ডিজি মহাশয় তার সহকর্মীদের সাথে পরামর্শ করে বই মেলা না করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর এই ঘোষণা দেখে ক্ষেপে যায়, বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশন সমিতি ও সৃজনশীল প্রকাশন সমিতি। এরপর তারা বাংলা একাডেমির সাথে দফায় দফায় মিটিং করে।

কিন্তু ডিজি মহাশয় হয়তো ইতিহাসের অংশ হতে ভীষণ ভয় পাচ্ছিলেন। তাই তিনি মেলা না করার ব্যাপারে অনড় রইলেন। তখন সমিতিগুলো দ্বারস্থ হলো, তথ্য মন্ত্রণালয়ের। সমিতিগুলো তথ্য মন্ত্রণালয়কে হুমকি দিল, ‘যদি বাংলা একাডেমি মেলা না করে, তাহলে আমরা নিজেরাই উদ্যোগ নিয়ে মেলার আয়োজন করবো।‘

এই হুমকিতে কাজ হলো। তখন তথ্য মন্ত্রণালয় বলল, ‘ঠিক আছে, ব্যাপারটা আমরা ম্যাডামকে মানে প্রধানমন্ত্রীকে জানাচ্ছি। কেবল মাত্র ম্যাডাম অনুমতি দিলেই মেলা হবে।’
এরপর প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে গ্রীন সিগন্যাল পাওয়ার পর, বাংলা একাডেমি অনিচ্ছা স্বত্বেও মেলার আয়োজন করতে শুরু করলো। মেলা প্রস্তুতির প্রারম্ভেই অনেকেই আশঙ্কা করেছিলেন, মেলা শেষ পর্যন্ত জমবে তো! কারণ, বুয়েট, ঢাবি, ঢাকা কলেজ, শেরে বাংলা কৃষি, জগন্নাথ, প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় আর স্কুল কলেজ সব বন্ধ। মেলার মূল ক্রেতারাই তো বিশ্ববিদ্যালয় আর কলেজ পড়ুয়ারা। মেলা শুরু হওয়ার পর দেখা গেল, আশঙ্কা সত্যি হয়েছে। মেলা জমেনি।

পরিশেষে, করোনা পরিস্থিতি যখন চরম আকার ধারণ করতে শুরু করেছে, তখন বাংলা একাডেমি মেলার সময় কমিয়ে দিয়েছে। বাংলা একাডেমি যে এখনো মেলা স্থাগিত করেনি, সে জন্যই তারা ধন্যবাদ পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু আমরা সেই বাংলা একাডেমিকেই দোষারোপ করে যাচ্ছি। বাংলা একাডেমির হয়েছে মরণ! সে মেলা করলেও দোষ, মেলা না করলেও দোষ।

আর আমার মনে হচ্ছে, বাংলা একাডেমির ডিজির আশঙ্কাই সত্যি হতে যাচ্ছে! মাঝপথে মেলা বন্ধ করে দিয়ে তিনি হয়তো ইতিহাসেরই অংশ হতে যাচ্ছেন!

পঠিত : ১৩৪ বার

ads

মন্তব্য: ০