Alapon

কবি ইকবাল: কাফির থেকে যেভাবে আল্লামা হলেন...



দিন কয়েক পূর্বে আল্লামা ইকবালকে নিয়ে একটা ফিচার লিখেছিলাম। সেই ফিচারে আল্লামা ইকবালের একখানা কবিতার কয়েকটি চরণ উল্লেখ করেছিলা। চরণগুলো হলো-

‘মদিনার কোনো গলিতে
যদি আমার মৃত্যু উপস্থিত হয়
হযরত ইসা আ. স্বয়ং এসে
‘ওঠো’ বললেও আমি আর উঠব না।


তো এই কবিতার চরণ কয়েকজন ভাই বললেন, এই কবিতার লাইনগুলো সমস্যাপূর্ণ। অর্থাৎ ইমান ও আক্বিদার সাথে সাংঘর্ষিক। স্বয়ং ইসা আ. এসে ডাকলেও তিনি উঠবেন না, এটা চরম ধৃষ্ঠতাপূর্ণ চরণ!

আমি তাদের কমেন্ট পড়ে হাসলাম। ঠিক তখনই আল্লামা ইকবালের ‘আল্লামা’ হয়ে ওঠার গল্পটা মনে পড়ে গেল।

১৯০৯ সালে আল্লামা ইকবাল মহান আল্লাহর কাছে অভিযোগ করে একখানা কবিতা লিখলেন। কবিতার নাম ছিলো ‘শিকওয়া’। শিকওয়া অর্থ অভিযোগ। তিনি আল্লাহর কাছে মুসলিম উম্মাহ এবং বিভিন্ন বিষয় নিয়ে একগাদা অভিযোগ করলেন।

এই কবিতা প্রকাশ হওয়ার পর চারদিকে হৈচৈ পড়ে গেল। তখন দেওবন্দের কতক আলিম বললেন, ‘এই কবিতায় যতোগুলো অভিযোগ করা হয়েছে, সেসবের জবাব আমরা দিবো।’

এরপর কেটে যায় অনেকদিন। কিন্তু দেওবন্দের আলিমরা কোনো জবাব দিতে পারেন না। জবাব তো দিতে পারেইনি, উপরন্তু তারা বলতে শুরু করে, ‘এই কবিতা নাফরমান এবং কাফির ছাড়া আর কেউ লিখতে পারে না।’ এরপরপরই কবি ইকবালকে দেওবন্দ থেকে কাফির ঘোষণা দেওয়া হয়।

এরপর ১৯১৩ সালে কবি ইকবাল ‘শিকওয়া’ কবিতার জবাব নিয়ে রচনা করেন ‘জবাবে শিকওয়া’। জবাবে শিকওয়া কবিতা প্রকাশিত হওয়ার পর গোটা নিখিল ভারত যেন কেঁপে ওঠে। এমন অসাধারণ কবিতা পড়ে গোটা নিখিল ভারতে ধন্য ধন্য রব পড়ে যায়। একই সাথে দেওবন্দের আলিমরাও নিজেদের অজ্ঞতা ও ভুল বুঝতে পারে। আর হয়তো সেই ভুলের সংশোধন করতেই দেওবন্দ কবি ইকবালকে ‘আল্লামা’ উপাধিতে ভূষিত করেন। সেই থেকে তিনি সারা বিশ্বের মুসলিমের কাছে ‘কবি আল্লামা ইকবাল’ হিসেবে পরিচিত।

পঠিত : ১৫৪ বার

ads

মন্তব্য: ০