Alapon

আল্লাহ যাকে ইচ্ছে তাকে সম্মানিত করেন...



শেখ আদিল আল-কালবানী নামে পবিত্র মক্কার একজন ইমামের সিনেমার নায়কে পরিণত হওয়ার সংবাদ টাইমলাইনে ভাসছে৷ কিছুদিন আগে এই শায়খের তাসখেলা উদ্বোধনের ছবি ও নিউজ এখনো তরতাজা৷ তিনি অবশ্য ২০১০ সাল থেকেই বিতর্কিত। একটা ফতুয়া দিয়েছিলেন, বলেছেন যে গান বাজনা হালাল! অথচ এই শায়খের নামাযে কান্নাবিজড়িত কণ্ঠের তিলাওয়াত এখনো ইউটিউবে বিদ্যমান৷

একদা যিনি ছিলেন কাবার ঈমাম, আজ তিনি সৌদির তৈরি কোনো এক মুভির অভিনেতা!
❝আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সম্মান দান করেন এবং যাকে ইচ্ছা লাঞ্ছিত করেন!❞
(সূরাঃ আলে-ইমরান : ২৬)

আদিল কালবানিকে কাবার ইমামতি থেকে সিনেমার অভিনয়ে দেখে সুফিয়ান সওরি (রাহিsmile এর একটি ঘটনা স্মরণ হলো।

- সুফিয়ান সওরি রাহঃ জীবনের শেষদিকে কুঁজো হয়ে যান। সব সময় ব্যাকুল থাকতেন। তাঁকে কারণ সম্পর্কে জিজ্ঞেস করা হলো? তিনি জবাব দেন, শেষজীবনে আমার উস্তাদের একজন অগ্নিপূজক এবং আরেকজন খৃষ্টান হয়েছেন। না জানি আমার কি পরিণতি হয়।(তাযকিরাতুল আউলিয়া/আত্তার)

আর আজ যখন দেখলাম কাবার সাবেক ইমাম, যিনি কাবার আঙ্গিনায় সুললিত কণ্ঠে এতদিন মানুষের অন্তর প্রশান্ত করেছেন আজ তিনিই রিয়াজ সিজনের একটি এডে অভিনয় করেছেন। তা ছাড়া তিনি জুয়া খেলা এবং গানকে অনেক আগেই বৈধ বলেছেন। তখন নিজেদের শেষ অবস্থা নিয়ে চিন্তায় পড়ে যাই।

মাক্কাতুল মুকাররামা সারা দুনিয়ার মুসলমানদের সবচেয়ে সম্মানিত জায়গা৷ সর্বোচ্চ তীর্থভূমি৷ সবচাইতে মর্যাদাপূর্ণ মসজিদ৷ এখানকার ইমাম মানে তো বিশ্বের অন্যতম সম্মানিত ব্যক্তি৷ এমন পবিত্র জায়গা থেকেও এমন বড় ব্যক্তির পথহারা হওয়া সম্ভব, এটাই বাস্তবতা৷

কারণ হেদায়াত পাওয়া বা হেদায়াতের উপর থাকা কোনো স্থানের উপর নির্ভরশীল নয়৷ হেদায়াত আসে আসমান থেকে৷ তাই সবসময় হেদায়াত চাওয়া ও হেদায়াতের উপর থাকার জন্য দুআ করতে থাকা আমাদের কর্তব্য৷

আল্লাহ তা'আলা আমাদেরকে হেদায়াতের উপর অটল রাখুন। আমীন ইয়া রব্বুল আলামীন।

পঠিত : ১১৭ বার

ads

মন্তব্য: ০