Alapon

"প্রয়াত শাহবাগী আব্দুল গাফফার চৌধুরী স্মরণে"



"মুক্তিযুদ্ধ নামক" ধর্মের একজন ধার্মিক মারা গেছে। আল্লাহ তাকে তার বিচ্ছিন্নতাবাদি আর মুশরিক ভাইদের সাথে হাশরে উঠাক। তার কৃতকর্মের প্রতিদান রব্বুল আলামিন হাতে হাতে দিক। মুসলিম ঘরে জন্ম নিয়েও এই নালায়েক যেভাবে মুসলমান-ইসলাম ও আলেম-ওলামাদের সাথে শত্রুতা পোষণ করেছে, তার জন্য আল্লাহ্‌ তাকে হাশরের ময়দানে লজ্জিত করুক। অপমানিত করুক।

এই লম্পটের নীতি-নৈতিকতা সম্পর্কে তারই আরেক জাতি ভাইয়ের কলম থেকে একটু জানার চেষ্টা করি, চলুন।

'বঙ্গবন্ধুর ফোনে একবার একটা কাজে ৩২নং বাড়িতে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে দেখলাম বেগম মুজিব ও শেখ কামাল জুতা দিয়ে আবদুল গাফফার চৌধুরীকে বেধড়ক পেটাচ্ছেন। পেছনে মুজিব দাঁড়িয়ে আছেন। জানতে চাইলাম, শেখ কামাল তাকে এতো পেটাচ্ছেন কেন? সে তো মারা যাবে। তখন বঙ্গবন্ধু আমাকে বললেন, বদমাশটা রেহানাকে একা পেয়ে জড়িয়ে ধরে চুমু দিতে চেয়েছে। পরে দেখলাম আবদুল গাফফার বঙ্গবন্ধু ও বেগম মুজিবের পা ধরে পড়ে আছে । পরে আমি সুপারিশ করলে বঙ্গবন্ধু তাকে নিয়ে চলে যেতে বলে । । সে দিন সে মদপ্য ছিল বলে বঙ্গবন্ধু তাকে ক্ষমা করে ।তার কিছুদিন পর গাফফার লন্ডন চলে যান । বঙ্গবন্ধুর জীবদ্বশায় আর দেশে ফেরে নি ।'

-এম এ আক্তার মুকুল।" প্রথম সরকারের ইতিকথা"
পৃষ্টা ১১৫

এই হচ্ছে আমাদের দেশের চেতনা ব্যবসায়ী শাহবাগীদের চরিত্র। বুঝে নিয়েন এদের। আর এরাই আমাদের মাথার তাজ ইসলামি আন্দোলনের নেতৃবৃন্দ এবং ওলামায়ে কেরামকে সভ্যতা-নৈতিকতার সবক দেয়......! কী ভীষণ হাইস্যকর...
এই শাহবাগী লম্পট আজকে মারা গেলো। আল্লাহ্‌ তাকে উপযুক্ত প্রতিদান দিক। তার স্থান আবু লাহাবদের সাথে হোক......

এই লম্পট মারা গেছে, কিন্তু কিছুটা আফসোস হয় পরীমনির জন্যও ! কারণ, আগাচৌ ছিলো পরীর একজন সুগার ড্যাডি। আর তার মৃত্যুতে সেও তার একজন পুরনো খদ্দেরকে হারালো।

পঠিত : ১৮৩৩ বার

মন্তব্য: ০