Alapon

পোকামাকড়ের সাথে সন্ধি !



বর্ষাকাল আসলে একটা বিরক্তিকর ব্যাপার ঘটে। পোকামাকড়ের উৎপাত খুব বেড়ে যায়। ঘরের ভেতর-বাহির, খেত-খামার, গ্রাম, শহর—সবখানেই। সাধারণত সন্ধ্যার পর থেকে উৎপাত শুরু হয়। চারপাশ অন্ধকার হয়ে এলে সবাই যখন বাতি জ্বালায়, তখনই তারা আত্মপ্রকাশ করে। এজন্য অনেক সময় পোকামাকড়ের জন্য আলো দিয়েই ফাঁদ তৈরি করা হয়।
.
পোকামাকড়ের স্বভাব হলো, তারা আলোর প্রতি মোহাবিষ্ট থাকে। ফলে কোনটা আলো আর কোনটা আলেয়া, সেটা পার্থক্য করতে পারে না। অনেক সময় নিরেট আলো ভেবে সন্ধি করে বসে আগুনের সাথেও। ফলাফল—মৃত্যু!
.
রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঠিক এরকমই একটি উপমা দিয়ে সাহাবিদেরকে একটি বিষয় বুঝিয়েছিলেন। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন,
“আমার অবস্থা সে লোকের অবস্থার মতো, যে আগুন জ্বালিয়েছিল, তখন তাতে তার চতুষ্পার্শ্ব আলোকিত হলো, তখন পতঙ্গ ও সেসব জন্তু যা আগুনে পড়ে থাকে, তাতে পড়তে লাগল আর সে লোক সেগুলোকে বাধা দিতে লাগল। তবে তারা তাকে হারিয়ে দিয়ে তাতে ঢুকে পড়তে লাগল।”
.
তিনি বলেন, “এটাই হলো তোমাদের অবস্থা আর আমার অবস্থা। আমি আগুন থেকে রক্ষার জন্য তোমাদের কোমরবন্ধগুলো ধরে টানি ও বলি যে, ‘আগুন হতে দূরে থাকো, আগুন থেকে দূরে থাকো’; কিন্তু তোমরা আমাকে পরাস্ত করে তার মধ্যে ঢুকে পড়ছ।”[১]
.
এই হাদীসটা প্রথম যখন পড়েছিলাম, তখন হৃদয়ের খুব গভীর থেকে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি মুগ্ধতা অনুভব করেছিলাম। কী অসাধারণ একজন মানুষ ছিলেন তিনি। হৃদয়ছোঁয়া উপমার কথা নাহয় একপাশে রেখে দিলাম; উম্মতের প্রতি কত গভীর দরদ তিনি লালন করতেন, তা এই হাদীসের কথাগুলো থেকে স্পষ্ট বুঝা যাচ্ছে। মানুষ পোকামাকড়ের মতো আগুনে ঝাঁপ দিয়ে অবুঝ আত্মহুতি দিতে চায়, আর তিনি তাদের কোমর টেনে ধরে আগুন থেকে বাঁচানোর চেষ্টা করতেন! সুবহানাল্লাহ! সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম।
.
কোরিয়ান বয় ব্যান্ড বিটিএসের নাম শুনেনি, এমন মানুষ এখন খুঁজে পাওয়া ভার। অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের কিশোর-কিশোরীদের মধ্যেও বিটিএস এখন হটটপিক। বিশেষ করে স্কুলপড়ুয়া মেয়েদের জন্য বিটিএস এখন এক ভয়াবহ ফিতনার নাম। আমরা প্রথমে গায়ে মাখিনি। গানবাজনা করে খায় এমন ফিতনাবাজ শিল্পী তো আমাদের নিজেদের দেশেও অনেক আছে। বিটিএস কি এর চেয়ে বেশি কিছু না কি! কিন্তু যখন একটু কৌতুহলী হয়ে বিটিএসের ভক্তদের সম্পর্কে হালকাপাতলা ঘাঁটাঘাঁটি করলাম, তখন আমাদের চোখ ছানাবড়া।
.
বিটিএসের ভক্তদের মধ্যে অধিকাংশই স্কুলপড়ুয়া মেয়ে। কিন্তু এরা অন্যান্য ব্যান্ডের ভক্তদের মতো নয়। এরা নিজেদেরকে পরিচয় দেয় আর্মি হিসেবে। তারা বিটিএস আর্মি। কোনো দেশের আর্মি যেমন সে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য নিজেদের বিলিয়ে দেয়, এরাও তেমনি তাদের হিরোদের(!) মান-ইজ্জত বাঁচাতে সর্বদা সচেষ্ট থাকে। বিটিএস নিয়ে কেউ কোনো সমালোচনা করলে তারা আঘাত পায়। প্রতিপক্ষকে কাউন্টার দিতে মরিয়া হয়ে ওঠে।
.
প্রিয় শিল্পীর জন্য এরকম একটুআধটু পাগলামো করা বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে খুব বেশি অস্বাভাবিক না। ব্যাপারটা এতটুকুতেই সীমাবদ্ধ থাকলে এটা নিয়ে খুব বেশি দুশ্চিন্তারও কিছু ছিল না আমাদের। কিন্তু ঘটনা এরচেয়েও অনেক বেশি ভয়াবহ এবং চিন্তাজাগানিয়া।
.
আমাদের অবুঝ ভাইবোনগুলো বিটিএসের ফিতনায় এতটাই বেহুশ হয়ে গেছে যে, কেউ বিটিএসের সমালোচনা করলে তারা আক্রমণাত্মকভাবে তেড়ে আসে। এমনকি কোনো আলিম কিংবা দাঈ যদি ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে বিটিএস-এর ভুলগুলো ধরিয়ে দেন, তখন এই বিটিএস আর্মি নামক ভক্তরা ইসলামকে নিজেদের প্রতিপক্ষ হিসেবে নেয়। কেউ কেউ তো বলেও বসে যে, বিটিএস-ই নাকি তাদের রব! ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন!
.
আমাদের স্কুলপড়ুয়া ছোট্ট বোনগুলো বিটিএস-এর পৌরুষহীন ছেলেগুলোর প্রেমে এতটাই মজে গেছে যে, তাদেরকে নিয়ে পর্বের পর পর্ব ফিকশনাল লাভ স্টোরি লিখে ফেলছে। এই নপুংসক ছেলেগুলো হয়ে গেছে তাদের স্বপ্নের পুরুষ! আমাদের ছোট্ট বোনগুলোর মানসিক রুচিবোধের এমন ভয়াবহ বিপর্যয় দেখে আহত হৃদয় আরও আহত হলো। পোকামাকড়ের মতো তাদেরকে বিটিএস নামক ফিতনার আগুনে হুমড়ি খেয়ে পড়া দেখে হৃদয় ক্ষতবিক্ষত হলো।
.
আমার বোন!
তোমার রুচিবোধ তো এমন ছিল না। তুমি কী করে এমন নপুংসক ছেলেদেরকে নিজের স্বপ্নপুরুষ বানিয়ে নিলে, যারা নিজেরাই মেয়েদের বেশ ধারণ করে থাকে? তুমি কি জানো না যে, আমাদের নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঐসব পুরুষদেরকে লা’নত দিয়েছেন, যারা নারীদের বেশ ধারণ করে?[২]
.
তোমার স্বপ্নপুরুষ হবার কথা তো ছিল তাঁরা, যারা ছিলেন আল্লাহর রাস্তায় সীসাঢালা প্রাচীরের মতো। যাঁদের বীরত্বের কথা স্বীকার করে তাঁদের শত্রুরাও। যাঁদের বীরত্বে পৃথিবী দেখেছিল খিলাফতের সোনালি শাসন! তোমার স্বপ্নপুরুষ তো হবার কথা ছিল তাঁরা!
.
বোন আমার!
তুমি কেমন করে এমন কাফিরদের প্রেমে হাবুডুবু খাচ্ছ, যারা পৃথিবীর বুকে সমকামিতার মতো ঘৃণ্য কাজ প্রতিষ্ঠা করতে চাইছে? অথচ সমকামিতার অপরাধের জন্য আমাদের রব পুরো একটি জাতিকে পৃথিবীর বুক থেকে মুছে দিয়েছিলেন।
.
তুমি হয়তো বলবে, ওরা তো সমকামী না। বোন আমার, শতভাগ নিশ্চয়তা দিয়ে আমরাও এটা বলছি না যে, ওরা সমকামী। তবে ওদের সমকামী আচরণগুলো কি তুমি দেখোনি?[৩] তারা যে সমকামিতার পক্ষে কথা বলে, তা কি তুমি জানো না?[৪] তারা যে সমকামীদের প্রাইড মান্থ উদ্‌যাপনে স্টেইজ শো করে, তা কি তুমি দেখোনি?[৫]
.
আমার বোন!
তুমি কি জানো, কেন তুমি তাদের আচরণে প্রভাবিত হচ্ছ? কারণ, তুমি তো তাদের গানের জাদুতে বেহুশ হয়ে গেছ! এখন আবার বোলো না যে, তুমি তাদের গানের ভাষাই বুঝো না। গানের ভাষা বুঝা জরুরি কিছু না। গানের মাঝে থাকা মিউজিক তোমার অন্তরকে বশ করে ফেলেছে। কেননা, মিউজিক হচ্ছে অন্তরের মদ। এই মদ তোমার অন্তরে নিফাক জন্ম দিয়েছে। ফলে তুমি তোমার ধর্মের বিরোধিতা করে হলেও বিটিএস-এর সমর্থন করে যাচ্ছ!
.
আর ভাইয়ারা,
তোমরা কেন এমন কাফির গায়কদের মতো হতে চাচ্ছ, যাদের পৌরুষ বলতে কিছু নেই? যাদের মধ্যে পুরুষালী আচরণের চেয়ে মেয়েলি আচরণই বেশি? তোমাদের সামনে কি সত্যিকারের পুরুষদের উদাহরণ নেই? তোমরা কি সেইসব বীরপুরুষদের দেখো না, যারা যুগে যুগে পৃথিবীতে ইতিহাস রচনা করে গেছেন? তোমরা কি সেইসব বীরপুরুষদের দেখো না, যারা যুগে যুগে আল্লাহর শত্রুদের দম্ভ চূর্ণ করে দিয়েছেন, বুলন্দ করেছেন আল্লাহর কালিমাকে? তাঁরাই তো তোমাদের আইডল হবার কথা ছিল।
.
আদরের ভাইয়া ও আপুরা!
তোমরা কাদেরকে অনুসরণ করছ, কাদেরকে ভালোবাসছ একটু চিন্তা করে দেখো। বিটিএস সদস্যরা তো আল্লাহদ্রোহী কাফির। তারা তাদের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে মানুষকে জাহান্নামের দিকে আহ্বান করছে। এরা যদি আল্লাহর ওপর ঈমান আনা ছাড়াই মৃত্যুবরণ করে, তাহলে তো নিশ্চিত জাহান্নামে যাবে। জাহান্নামের চিরস্থায়ী বাসিন্দা হবে। তোমরা এমন কিছু লোকের অনুসরণে মত্ত হয়ে গেছ, যারা কি না জাহান্নামের পথের পথিক!
.
মুসলিম হিসেবে তোমরা কি আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের সাথে হাশর করতে চাও না? না কি এসব জাহান্নামের পথিকদের সাথে হাশর করতে চাও? কেননা, দুনিয়াতে তুমি যাকে ভালোবাসবে, যার অনুসরণ করবে, কিয়ামাতের দিন তোমার হাশর তার সাথেই হবে।[৬] ভেবে দেখো, তোমরা কি বিটিএস-এর সাথে হাশর করতে চাও? না কি মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে হাশর করতে চাও!
.
ভাইয়া ও আপুরা!
ভাই হিসেবে তোমাদের এমন পথচ্যুতিতে আমরা ব্যথিত হই। আগুনের সাথে তোমাদেরকে সন্ধি করতে দেখে আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়! চোখের সামনে তোমাদেরকে জাহান্নামের দিকে দৌড়াতে দেখে আমাদের অন্তর ভয়ে কেঁদে ওঠে!
.
বিশ্বাস করো, আমরা স্বপ্ন দেখি—সবাই মিলে জান্নাতের সবুজ বাগানে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে আড্ডা দেব! তোমরাও কি এমন সৌভাগ্যবান হতে চাও না? তাহলে আজই ফিরে আসো তোমাদের রবের পথে। থুথু মারো বিটিএস কালচারের মুখে।
.
প্লিজ, আগুনের সাথে সন্ধি কোরো না! পুড়ে ছাই হয়ে যাবে! দুনিয়াতেও, আখিরাতেও!


তথ্যসূত্র :

[১] সহীহ মুসলিম, হাদীস নং – ৫৮৫১
[২] সুনানু আবী দাঊদ, হাদীস নং – ৪০৯৭, সহীহ হাদীস
[৩] বিটিএসের সমকামী আচরণ - https://www.youtube.com/watch?v=ArM6S8JZnyY
[৪] বিটিএসের সমকামপ্রীতি (সময় সংবাদ) - https://tinyurl.com/2zc92up6
[৫] প্রাইড মান্থ সেলেব্রেশন কনসার্ট - https://tinyurl.com/btspridemonth
[৬] সহীহ বুখারি, হাদীস নং - ৩৬৮৮

পঠিত : ১৫৬০ বার

মন্তব্য: ০