Alapon

ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২২

কাতার বিশ্বকাপের যে পাঁচ কারণে আলাদা বলে দাবি ফিফার

১.এটা প্রথম কোন বিশ্বকাপ যেটা শীত কালে অনুষ্ঠিত হবে।
২.এটা হবে পৃথিবীর সবথেকে ব্যয়বহুল ক্রীড়া ইভেন্ট
৩.এই বিশ্বকাপের দর্শক সংখ্যা হবে অন্য সকল ইভেন্টের থেকে বেশি
৪.ব্রাজিলের পর সবথেকে কম ৮টি স্টেডিয়াম নিয়ে অনুষ্ঠিত হবে এই বিশ্বকাপ স্টেডিয়াম গুলো হবে সীতাতপ নিয়ন্ত্রিত।
৫.এটা হবে পৃথিবীর সবথেকে comfortable বিশ্বকাপ।


১৯৩০ সাল থেকে ফুটবল বিশ্বকাপ শুরু হলেও কাতার যেটা দেখিয়েছে সেটা কোনো দেশ পারেনি,
ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যায়বহুল বিশ্বকাপ ২০২২ কাতার বিশ্বকাপ যেখানে খরচ করা হয়েছে ২২০ বিলিয়ন ডলার।
আগের বছরগুলোর তুলনায় বিশ্বকাপ আয়োজনের খরচ বহুগুণে বাড়িয়েছে কাতার।
২০১৮ সালে সফলভাবে বিশ্বকাপ আয়োজনের জন‌্য রাশিয়া ১১.৬ বিলিয়ন ডলার খরচ করেছিল। ব্রাজিল ২০১৪ সালে করেছিল ১৫ বিলিয়ন ডলার। ২০১০ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপের খরচ ছিল ৩.৬ বিলিয়ন ডলার। এর আগে জার্মানি ২০০৬ সালে ৪.৩ বিলিয়ন ডলার, জাপান ২০০২ সালে ৭ বিলিয়ন ডলার, ফ্রান্স ১৯৯৮ সালে ২.৩ বিলিয়ন ডলার এবং যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ সালে ৫০০ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছিল।

কাতার দেখিয়ে দিলো তারা যা করে দেখিয়েছে তা এতদিন মানুষ কেবল স্বপ্নেই দেখেছে।

যারা গতকাল ওপেনিং সিরিমনি তে উপস্থিত হয়েছেন স্টেডিয়ামে সকল দর্শকদের জন্য ছিল কাতারের আমির তামিম বিন হামিদের স্বাক্ষরিত একটি টি শার্ট।
যেই টি শার্ট এর মত একটি টি শার্ট পড়ে ৩০ বছর আগে কাতারের আমির তামিম বিন হামিদ এই স্টেডিয়াম যেখানে স্থাপিত ঠিক সেখানেই ফুটবল খেলেছেন।
শুধু জার্সিই না প্রত্যেকের জন্য ছিল একটি করে ব্যাগ যেখানে আতর, বিশ্বকাপ মাস্কাট সহ ছিল আরো কিছু গিফট।
এমনকি উদ্বধনী অনুষ্ঠান কোরআন তেলওয়াত দিয়ে শুরু করা হইছে, বক্তব্য দিয়েছেন পৃথিবী সেরা ইসলামি স্কলার ডঃ জাকির নায়েক।

কাতারে আশা সকল ফ্যানদের জন্য ছিল রাজকীয় অভ্যর্থনা,
জমকালো আলোকসজ্জা, মন মুগ্ধকর সব আয়োজনে মুখরিত ছিল পুরো স্টেডিয়াম, বিশেষ করে ছিল না কোনো অশ্লীলতার ছোঁয়া।

কোনো সন্দেহ ছাড়াই এটা সব থেকে জমকালো বিশ্বকাপ কাতারের আমির দেখিয়ে দিয়েছেন তারা কি পারে।

পঠিত : ৮৫ বার

ads

মন্তব্য: ০