Alapon

জান্নাতে প্রবেশের আটটি দরজাই যাদের আহ্বান করবে...



যে ধরণের মানুষেরা জান্নাতে প্রবেশ করবে তার মধ্যে অন্যতম একটি দল হলো- যারা এই দুনিয়াতে বিভিন্ন ট্রাজেডি বা ভয়ানক দুঃখ-কষ্ট ভোগ করেছেন। আর তারা এতে ধৈৰ্য ধারণ করেছেন। এটা সম্ভব যে, শুধু ধৈর্য আপনাকে জান্নাতে প্রবেশকারীদের একেবারে প্রথম সারিতে নিয়ে আসবে এবং জান্নাতে প্রবেশের আটটি দরজার সবগুলো আপনার জন্য উন্মুক্ত হয়ে পড়বে।

জানেন তো ঐ দরজাগুলোর কোনোটা সালাতের, কোনোটা রোজার, কোনোটা বা জিহাদের ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু, এমন অনেক মানুষ থাকবে যাদের হয়তো ঐরকম উচ্চ লেভেলের সালাত, সিয়াম বা জিহাদ নেই। কিন্তু তাদের শুধু একটি জিনিস আছে। আর এই একটি জিনিস তাদেরকে জান্নাতে প্রবেশকারীদের একেবারে সম্মুখভাগে নিয়ে আসবে। এরপর জান্নাতের সবগুলো দরজা তাদেরকে নাম ধরে প্রবেশ করার আহ্বান জানাবে।

সে জিনিসটি কী? আমরা একে বলতে পারি খুবই মারাত্মক লেভেলের ব্যথা, কষ্ট এবং যন্ত্রণা ভোগের সময় ধৈর্য ধারণ। এই ধারণাটি খুবই সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে ছোট বাচ্চা মারা যাওয়ার হাদিসে। হাদীসটি হলো- "সন্তানেরা প্রাপ্ত বয়সে পৌঁছার পূর্বেই যে ব্যক্তি তিন সন্তান হারাবে আর এতে সে ধৈর্য ধারণ করবে। এমন ব্যক্তি শেষ বিচারের দিন দেখবে জান্নাতে প্রবেশের আটটি দরজার সবগুলো তার জন্য উন্মুক্ত হয়ে পড়েছে এবং সে যে দরজা দিয়ে ইচ্ছা প্রবেশ করতে পারবে।"

এখানে একটু থামি। তিন সন্তান!! মানে কি? ইতিহাসের ঐ সময়কালে শিশু মৃত্যুর হার ছিল অত্যন্ত বেশি। আমরা আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করছি যে ঐ সময়টা পার হয়ে গেছে।
আমি এ বিষয়ে সংক্ষিপ্ত অনুসন্ধান চালিয়েছি। খুঁজে পেলাম, এক দল গবেষক মধ্য যুগের ইউরোপে তথা ১৪শ থেকে ১৬শ সালের ইউরোপে শিশু মৃত্যুর হার নিয়ে একটি জরিপ চালিয়েছেন। তারা উদঘাটন করেছেন যে, তখনকার ইউরোপে দুই বছর বয়সের পূর্বেই প্রতি চারজন শিশুর একজন মারা যেত। আর পনের বছর বয়সে পৌঁছার পূর্বেই প্রায় ৪০ শতাংশ শিশুর মৃত্যু ঘটতো।

চিন্তা করে দেখুন। এটা ছিল মধ্য যুগের ইউরোপ। পাঁচশ বছর পূর্বে। আর রাসূলুল্লাহ (স) এর সময়কালের আরবে এ সংখ্যা আরো বেশি হওয়ার কথা। আপনাদের দাদা-দাদীদের গল্প থেকেও আপনারা জেনে থাকবেন। আমার দাদীও আমাকে বলেছে, শিশু মৃত্যু তাদের সময়েও খুবই কমন একটা ব্যাপার ছিল। তো, তিন সন্তান হারানো সে সময় বিরল কোনো ঘটনা ছিল না।

শিশু মৃত্যুর হার এখন এক শতাংশেরও কম। আলহামদুলিল্লাহ। আমরা আল্লাহর প্রশংসা করছি। এটি আধুনিক বিজ্ঞানের অন্যতম বড় একটি অর্জন। যে দ্রুত গতিতে শিশু মৃত্যুর হার কমেছে এটা আধুনিক প্রযুক্তির অন্যতম বড় একটি অর্জন। সমগ্র পৃথিবী জুড়ে। আলহামদুলিল্লাহ।

তাই, শিশু মৃত্যু এখন খুবই বিরল ঘটনা। যদিও একশ দুইশ বছর আগেও এটা সাধারণ ঘটনা ছিল।

যারা সন্তান হারিয়েছেন কেবল তারা জানেন এটা কতটা কষ্টের! মানুষের অভিজ্ঞতায় এর চেয়ে কষ্টের কোনো বিষয় নেই। নিজের সন্তানকে কবর দেয়ার কষ্টের চেয়ে কঠিন কোনো কষ্ট নেই। আল্লাহ আজ্জা ওয়া জাল্লা আমাদেরকে এর থেকে রক্ষা করুন। আমরা এখান থেকে বলতে পারি, ইনশাআল্লাহ, একজন মারা গেলেও।

কারণ, ছোট বাচ্চা হারানোর কষ্টের চেয়ে বড় কোনো কষ্ট পৃথিবীতে আর নেই। আগের যুগে বাচ্চা মারা যাওয়ার হার ছিল অনেক বেশি। এ জন্য হাদিসে তিন সন্তানের কথা এসেছে। আমাদের সময়ে বাচ্চা মারা যাওয়ার হার অনেক কম। তাই, এক বাচ্চা মারা যাওয়ার কষ্টও নিদারুণ যন্ত্রণার।

আল্লাহ হলেন আর-রাহমান, আর-রহীম। হাদিসে বর্ণিত নাম্বারগুলো সে সময়কার পরিস্থিতির আলোকে উপস্থাপিত হয়েছে। এখান থেকে আমরা বলতে পারি, আমাদের সময়ে কোনো দম্পতি যদি এক সন্তানও হারান ইনশাআল্লাহু তায়ালা তার জন্যেও জান্নাতের আটটি দরজার সবগুলো উন্মুক্ত হয়ে পড়বে।

- ড. ইয়াসির কাদি

পঠিত : ৭১ বার

ads

মন্তব্য: ০