Alapon

বইমেলায় আদর্শ প্রকাশনীর স্টল বরাদ্দ বাতিল এবং কিছু কথা...



'আদর্শ প্রকাশনীকে' বইমেলায় স্টল বরাদ্দ দিচ্ছেনা কারণ তারা এমন তিনজন লেখকের বই প্রকাশ করেছে যাদের লেখায় সরকারের সমালোচনা থাকে।

ফাহাম আব্দুস সালাম, জিয়া হাসান এবং ফায়েজ তৈয়ব আহমেদ। এই তিনজনের প্রতি মুগ্ধতা আলাদাভাবে উল্লেখের প্রয়োজন আছে বলে মনে করিনা। ফেসবুকে যারা একটু লেখালেখি করেন বা পলিটিক্যালি কনশাস তারা প্রায় সবাই-ই এই তিনজনকে চেনার কথা।
উল্লেখিত তিনজনেরই ভালোগুণ হলো- আজগুবি কথা বলেন না, যা বলেন যাচাই করে বুঝেশুনে অথেন্টিক কথা বলেন৷ যাদের লেখার উপর আপনি নির্ভর কর‍তে পারবেন- তিনজনই হচ্ছে এমন ক্যাটাগরির লেখক।

ওনাদের বই প্রকাশের কারণে আদর্শের স্টল বরাদ্দ বাতিল করার 'আওয়ামি-একাডেমির' এমন সিদ্ধান্তে অবাক হইনি। মুশকিল হলো- আওয়ামি একাডেমির ছা*গ*লদের মাথায় বুদ্ধি কম। এরা আয়োডিনের অভাবে ভুগছে। যাদের পাঠক আছে তাদের বই বিক্রির জন্য আজকাল মেলা লাগে নাকি? বইমেলা লাগে যেসব গা*ন্ডুদের বই বিক্রি হয়না তাদের। মেলায় ঘুরতে যাওয়া দর্শনার্থীদেরর চিচিংফাক বুঝিয়ে ১-২ কপি গছিয়ে দেয়ার জন্য। তারপরেও স্টল বরাদ্দ দেয়ার সিদ্ধান্তে খারাপ লাগছে ওনাদের বই বিক্রি হবেনা, এই কারণে না। এমন অন্যায্য আচরণে রাগ হচ্ছে।

ফাহাম আব্দুস সালামের বইটা আজ থেকে ২ বছর আগেই আমি সংগ্রহ করেছিলাম। আমি ঢাকা বইমেলায় গেছিলাম, তখনো বইটা আসেনি। বইটা এসেছিল মেলার প্রায় শেষের দিকে। পরে বইটা আমি অনলাইন শপ থেকে নিয়েছিলাম।

এবার- আদর্শ প্রকাশনীকে নিয়ে একটু মুগ্ধতার কথা বলি। বাংলাদেশে করোনার কার‍ণে প্রথম যখন লকডাউন দেয়া হলো, মানুষজন কাজকর্মহীন হতোদ্যম হয়ে ঘরে বসে ছিলো, তখন আদর্শ প্রকাশনী খুব চমৎকার একটা কাজ করেছিল। তারা লকডাউনের সময়টাতে ঘরবন্দি মানুষের যেন হতাশা পেয়ে না বসে তাই তাদের প্রকাশিত অনেকগুলা বইয়ের ই-বুক ফ্রি'তে পাঠকদের জন্য উন্মুক্ত করে দিয়েছিল। সেখানে ফায়েজ আহমদ তৈয়বের 'চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ও বাংলাদেশ' বইটাও ছিল। ওখান থেকে আমি বইটা পড়েছিলাম।

জিয়া হাসানের অর্থনীতি বিষয়ক লেখালেখি নিয়ে সরকারের আপত্তি। কিন্তু ওনার একটা দারুণ উপন্যাসও আছে। 'দুর্ঘটনায় কবি'... এই বইটাও আমি লকডাউনের সময় আদর্শের উন্মুক্ত করে ফ্রি-ইবুক হিসেবে পড়েছিলাম। লকডাউনের সেই হতাশার সময়ে আদর্শ প্রকাশনী তাদের এতগুলা বই উন্মুক্ত করে ঘরবন্দি মানুষের সময়টাকে কিছুটা হলেও আনন্দময় করে তোলার ব্যবস্থা করেছিল। তাদের প্রতি এই কারণে আমার একটা প্রচন্ড ভালোলাগা আছে।

এই ধরনের সুবিবেচনাসম্পন্ন প্রকাশনী সংস্থার সফলতা জরুরি।

আওয়ামি-একাডেমি স্টল বরাদ্দ না দিলেও আমরা যেভাবে হোক আদর্শের প্রকাশিত ভালো বইগুলা কিনবো। আর সো*দানির পোয়াদের লেখা বইগুলা বইমেলাতে বেচুক, নাহয় ঘরের দরজায় এসে হকারি করে বেচুক তাও কিনবোনা.... কিনবোনা... কিনবোনা।

পঠিত : ৬৫ বার

ads

মন্তব্য: ০