Alapon

পাবলিক ম্যাটারস




বুক রিভিউ
বই- পাবলিক ম্যাটারস
লেখক- ড. সালমান আল আওদাহ
অনুবাদক- আলী আহমাদ মাবরুর
প্রকাশক-- প্রচ্ছদ প্রকাশন - Prossod Prokashon
প্রথম প্রকাশ- ডিসেম্বর২০১৯
মূল্য-- ২৭০৳

বর্তমান সময়ের আলোচিত একজন ইসলামীক স্কলার হচ্ছেন ড.সালমান আল আওদাহ। গত মে মাসের ২২ তারিখ সৌদি আরবের একটি আদালতে রমজান পরবর্তী সময়ে তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার ঘোষণা দিলে পৃথিবীর মানুষের কাছে তিনি নতুন করে পরিচিতি লাভ করেন। তিনি ১৯৯৪ সালে সৌদি আরবের মুহাম্মাদ বিন সউদ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন। তিনি ষাটের অধিক গ্রন্থ রচনা করেছেন।

"পাবলিক ম্যাটারস" ড.সালমান আল আওদাহ রচিত পাঁচটি প্রবন্ধের সংকলন। প্রবন্ধ গুলো বাংলা ভাষা-ভাষীদের জন্য অনুবাদ করেন এ সময়ের সাড়া জাগানো লেখক,অনুবাদক,আলীআহমাদ মাবরুর।

প্রবন্ধ গুলো যেমন গুরুত্বপূর্ণ তেমনি এই সময়ের জন্য প্রয়োজনও বটে। বর্তমান মুসলমান জাতির যে দূরাবস্থা, মুসলমানদের মাঝে যে অনৈক্য, অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব, কাঁদা ছুটাছুটি তার থেকে খানিকটা হলে ও বেরিয়ে আসতে বা চিন্তা করতে সহযোগিতা করবে এই পাবলিক ম্যাটারস।

পাবলিক ম্যাটারস'র পাঁচটি প্রবন্ধ। যথা-
(১) ক্ষুদ্র ও কম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়াদি নিয়ে পড়ে থাকা।
(২)লোক দেখানো ইবাদতঃ প্রচলিত বিশটি দৃষ্টান্ত। (৩) প্রসঙ্গঃ ইসলামী আইন ও জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। (৪) ইজতিহাদঃ গুরুত্বপূর্ণ ও যোগ্যতার মানদন্ড। (৫) ইসলাম ও ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ।

প্রথম প্রবন্ধে তিনটি অধ্যায় রয়েছে যার প্রথম অধ্যায়ে ঈমান এবং আমল সংক্রান্ত বিষয়, দ্বিতীয় অধ্যায়ে বর্তমান সময়ের প্রাসঙ্গিক কিছু ঘটনা এবং উদাহরণ আর এগুলোর আলোকে যৌক্তিক কিছু সমাধান পেশ করেছে তৃতীয় অধ্যায়ে।

দ্বিতীয় প্রবন্ধে দুটি অধ্যায় রয়েছে যার প্রথমটিতে ইবাদতের অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক বৈশিষ্ট সমুহ আলোচনা করেছেন এবং দ্বিতীয় অধ্যায়ে লোক দেখানো কাজের বিশটি প্রকাশভঙ্গী উল্লেখ করেছেন। মানুষ নিজেকে জাহির করার জন্য কত ধরনের মাধ্যম অবলম্বন করতে পারে তার সবক'টি মাধ্যমই এই অধ্যায়ে আলোচনা করেছ লেখক।এই অধ্যায়টি যেকোনো বিবেকবান মানুষকেই ভাবতে বাধ্য করবে।

তৃতীয় প্রবন্ধে ইসলামী আইন এবং জনগণের সাথে সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ণ কিছু ইস্যু আলোচিত হয়েছে।

চতুর্থ প্রবন্ধটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। এখানে ইজতিহাদ নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। ইজতিহাদ কি,কেন, ইজতিহাদ কারা করতে পারবে, এটার জন্য যোগ্যতা কি লাগবে, যোগ্যতা ছাড়া ইজতিহাদ করার পরিণাম কি হতে পার, ইত্যাদি পয়েন্ট আকারে এখানে আলোচনা করা হয়েছে।

পঞ্চম প্রবন্ধটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যেটা নিয়ে বর্তমান বিশ্বে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। "ইসলাম ও ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ" প্রবন্ধে পাঁচটি অধ্যায় রয়েছে, যেখানে জাহেলিয়াতের পরিচয়, বৈশিষ্ট্য, ধর্মনিরপেক্ষতার স্বরূপ, কোন মুসলমান ধর্মনিরপেক্ষ হতে পারবে কিনা, ধর্মনিরপেক্ষতা মোকাবিলা করার প্রয়োজনীয়তা ইত্যাদি বিষয় গুলো এই অধ্যায়ে আলোচনা করা হয়েছে।

এছাড়া মুসলিম বিশ্বে কিভাবে ধর্মনিরপেক্ষতার বীজ বপন করা হয়েছে লেখক তার বর্ণনা দিতে গিয়ে তৎকালীন তুরস্ককে সামনে এনেছেন এবং কিভাবে ইহুদি-খ্রিষ্টান ঐক্যবদ্ধভাবে চক্রান্ত করে মুসলিম বিশ্বে ধর্মনিরপেক্ষতা প্রবেশ করিয়েছিলেন তার বিস্তৃত বর্ণনা তুলে ধরেছেন।

বইটি যে কেউ পড়লে তার চিন্তার রাজ্যে ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। বিশেষ করে দ্বিতীয় প্রবন্ধের দ্বিতীয় অধ্যায়টি পড়লে যে কারো আমলের মধ্যে খুলুসিয়াত আনতে সক্ষম হবে বলে মনে করি।

পঠিত : ৯২৪ বার

মন্তব্য: ২

২০২৩-০২-১২ ২৩:৫২

User
তেপান্তর

boita kinsi, pora hoy nai ekhono

submit

২০২৩-০২-১৩ ১৩:৩৭

User
ইবনে মাসউদ

সময় করে পড়ে নিতে পারেন।

submit