Alapon

ভাবার সময় কি হয়নি তোমার?



হিসেব নিকেশ করে দেখো; কার জন্য অবিরত ছুটে চলো হন্য হয়ে এই নর্দমা যুক্ত পৃথিবীতে? কীসের নেশায় জলাঞ্জলি দাও আত্মসম্মান ও ব্যক্তিত্ববোধকে? অর্থকড়ি? ধনসম্পদ? যশ-খ্যাতি? সামাজিক মর্যাদা? কারো প্রেম? কারো ভালোবাসা? অনেক ফেমাস হওয়ার খায়েশ? নেতৃত্ব-কর্তৃত্বের খায়েশ?

এই যে এত্তো এত্তো কিছু, বিশ্বাস করো কিচ্ছু থাকবে না। জাস্ট কিচ্ছু না! হয়তো একটু জ্বর এসেই তোমাকে এই জঞ্জালপূর্ণ পৃথিবীর পাতা থেকে সরিয়ে দিবে। কিংবা কয়েকবার পাতলা পায়খানা-ডায়রিয়া-বমি এসে কাবু করে দিবে, ধরার বুক থেকে ঘটিয়ে দিবে জীবনের যবনিকাপাত। হয়তো পিছঢালা কালো পথটাতে হাঁটতে গিয়ে কিংবা বাইকে চড়তে গিয়ে অন্যকোনো একটা গাড়ির নিচে পড়েই ভবলীলা সাঙ্গ হয়ে যাবে তোমার!

হতে পারে রাতে সুস্থ স্বাভাবিকভাবে ঘুমিয়েছো, সকালে ওঠে প্রাণভরে উপভোগ করতে পারবে না প্রভাতের সমীরণ—উঠবে মরা লাশ হয়ে ! হতে পারে না এমন? হয় না? হচ্ছে না? দেখো না আশেপাশে এসব?? যদি হয়েই থাকে এসব, যদি এসবের সাক্ষী তুমিও হয়ে থাকো, তবে কীসের এতো এতো দাপট তোমার? কীসের এতো এতো অহংকার তোমার? কীসের এতো স্বপ্ন তোমার? কার জন্য দিনের পর দিন নিজেকে নীরবে নিঃশব্দে নিঃশেষ করছো? কার জন্য রাতের পর রাত কাটাচ্ছো নিদ্রাহীন? বুকের খাঁচায় কী জন্যই-বা ব্যথার সানাই বাজিয়ে বেড়াও অবিরত? বিরামহীন ?

যেখানে তোমার জীবনেরই নিশ্চয়তা নেই! যেখানে তুমি নিজেই হয়ে যেতে পারো নিমিষেই নিশ্চল! তবে সেখানে কেনো এতো নেশা, এতো মায়া, এতো উন্মাদনা পৃথিবীর তরে? দয়ামায়াহীন পৃথিবীর মানুষগুলোর তরে? কেনো? কী জন্য? জবাব আছে?
তুমি কি জানো না
كُلُّ نَفْسٍ ذَآىِٕقَةُ الْمَوْتِ -কুল্লু নাফ্সিন্ যা-ইকাতুল্ মাওত্ ‘প্রত্যেক প্রাণীকে মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে।’ (সূরা: আল ইমরান, আয়াত: ১৮৫)


তুমি কি জানো না পৃথিবীতে কেউ-ই স্থায়ী হতে আসেনি? তুমি কি জানো না পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাবান মানুষটিও আজকে স্রেফ একটা মরা লাশ? পচেগলে গেছে সবচেয়ে দোর্দণ্ডপ্রতাপে দাপিয়ে বেড়ানো ব্যক্তিটির দেহটাও??

জানো না পৃথিবীর সবকিছু ছেড়ে একদিন চলে যাবে কিংবা যেতে হবে অনন্তের দিকে? অন্ধকার ভুবনে? পরপারের জীবনে? তবে কেনো সেই জীবনের জন্য নিজেকে গড়ছো না? তৈরি করছো না? সবকিছু জেনেও, সবকিছু দেখেও কেনো এত্তো অবুঝের মতো আচরণ তোমার? কেনো? কেনো?

এতো এতো দিন গেলো, এতো এতো মাস গেলো, বছর গেলো, তবুও কি তোমার ভাবার সময় হয়নি? এবারও কি একটুও ভাববে না তুমি? এবারও কি তবে অনিষ্টকারী আবেগের ওপর প্রাধান্য দিবে না তোমার বিবেকটাকে? দিবে না???

মৃত্যু পরবর্তী জীবনটার জন্যে এবারও কি একটুখানি সামান সংগ্রহের দিকে মনোনিবেশ করবে না? বুদ্ধিমান কি কখনো চিরস্থায়ী আখেরাতকে ক্ষণস্থায়ী দুনিয়ার জন্যে নষ্ট করতে পারে? আর যে এটা করে, তাকে কি কখনো বুদ্ধিমান বলা চলে? আল্লাহর রাসুল সল্লাল্লাহু আলাইহি ওসাল্লাম কী বলেছেন জানো? তিনি বলেছেন-
"বুদ্ধিমান ওই ব্যক্তি, যে ব্যক্তি আখেরাতের সামান সংগ্রহ করে। মৃত্যু-পরবর্তী জীবনের জন্যে আমল করে। আর পক্ষান্তরে অক্ষম, নির্বোধ সেই ব্যাক্তি, যে নিজেকে তার প্রবৃত্তির অনুগত করে আর আল্লাহর কাছে বড়ো বড়ো আশাও পোষণ করে রাখে।"



#নিজেকে_নাসীহা
~রেদওয়ান রাওয়াহা
https://t.me/RedwanRawaha

পঠিত : ৩৪৬ বার

মন্তব্য: ০