Alapon

আল্লাহকে খুশি করার এক নম্বর উপায় হলো আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করা...



সূরাতুল বুরুজে আমরা সবাই আসহাবুল উখদূদের বিখ্যাত ঘটনা পড়েছি। এটি প্রাক ইসলামি যুগের একটি ঘটনা। যেখানে একদল ঈমানদারদের নিষ্ঠুরভাবে নির্যাতন করা হয়েছিল। আগুনের বিশাল চুল্লি তৈরী করে তাদের ওখানে নিক্ষেপ করা হতো। নৃশংস নির্যাতন।

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালা এই ঘটনাটিকে কুরআনে উল্লেখ করে একে জীবন্ত করে রাখেন। এরপর আল্লাহ বলেন- اِنَّ الَّذِیۡنَ فَتَنُوا الۡمُؤۡمِنِیۡنَ وَ الۡمُؤۡمِنٰتِ ثُمَّ لَمۡ یَتُوۡبُوۡا فَلَهُمۡ عَذَابُ جَهَنَّمَ وَ لَهُمۡ عَذَابُ الۡحَرِیۡقِ - "যারা মুমিন পুরুষ ও নারীদের প্রতি যুলম পীড়ন চালায় অতঃপর তাওবা করে না, তাদের জন্য আছে জাহান্নামের শাস্তি, আর আছে আগুনে দগ্ধ হওয়ার যন্ত্রণা।" (৮৫:১০)

হাসান আল বসরী এই আয়াতের উপর মন্তব্য করতে গিয়ে বলেন- কি অসাধারণ একটি আয়াত! এই মানুষগুলো আল্লাহর ওলীদের উপর নির্যাতন চালিয়েছিল। ধার্মিক মানুষদের হত্যা করেছিল। তবু আল্লাহ তাদের জন্য বাঁচার একটি পথ খোলা রেখেছিলেন এবং বলেন- যদি তারা তাওবা করে তবে তাদের মাফ করে দেওয়া হবে।

ওই মানুষগুলো আমাদের কল্পনায় সবচেয়ে জঘন্যতম পাপ করেছিল। ঈমানদারদের উপর গণহত্যা চালিয়েছিল। শুধু আল্লাহর উপর ঈমান আনার কারণে হত্যাকান্ড চালাতো। আল্লাহ তাদের উদ্দ্যেশ্যে বলেন- সুম্মা লাম ইয়াতুবু। যদি তোমরা তাওবা না করো, তবে জাহান্নামে নিক্ষেপ করা হবে।

হাসান আল বসরী বলেন- এমনকি আল্লাহ এমন ধরণের অপরাধীদের জন্যেও একটি পথ খোলা রেখেছেন। তাহলে আমাদের ব্যাপারে কি বলবেন!

একটি হাদিসের কথা আমরা জানি। যেখানে একটি উদাহরণ দিয়ে বলা হয়েছে- এক লোক মরুভূমিতে উট হারিয়ে ফেলার কারণে তার জীবনহানির আশঙ্কা হয়। এরপর সে তার উট ফিরে পেলে যেরকম খুশি হয় আল্লাহ কোনো মানুষের তওবায় তার চেয়েও অধিক খুশি হোন।

ইবনে জাওযী মন্তব্য করেন- কুরআন সুন্নার কোথাও অন্য কোনো আমলে আল্লাহর এ ধরণের খুশি হওয়ার কথা জানা যায় না। তওবাকারীর তওবায় আল্লাহ যতটা খুশি হোন।
আল্লাহকে খুশি করার এক নম্বর উপায় হলো- যখন আপনি আল্লাহর দিকে প্রত্যাবর্তন করেন। তওবার অর্থ এটাই। তাওবা মানে ফিরে আসা।

- ইয়াসির কাদি

পঠিত : ১০২৭ বার

মন্তব্য: ০