Alapon

বিনোদনের নামে সমকামিতার প্রচার বন্ধ করুন



সত্যি বলতে কি মানব জাতি অনুকরন প্রিয়। অনুকরণ করতে খুব ভালোবাসে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অনুকরণ করতে না পারলেও ভাবে, ইশ! যদি আমিও ওটা করতে পারতাম।
দেশে বিভিন প্রজাতির মানুষ আছে। আমি ধরন না বলে প্রজাতি বললাম একটা কারনে। লেখা পড়লে বুঝতে পারবেন। দেশে ধরেন ভ্যারাইটিজ রকমের মানুষ আছে, কেউ মনেপ্রাণে ধার্মিক, কেউ বক ধার্মিক, কেউ অকেশনাল মদখোর, কেউ লিভার পঁচায় ফালায়। এই রকম আরকি। কেউ পুরুষ প্রিয়, কেউ স্ত্রী প্রিয় আবার কেউ কেউ কমন মানে দুইই প্রিয়।

আমাদের দেশে অনেক কিছুই কট্টর ভাবে নিষিদ্ধ। আবার সোস্যাল মিডিয়ার আশীর্বাদে আমরা যখন দেখি প্রতিবেশী রাষ্ট্রেই সেম জিনিসটা হচ্ছে, তখন আমার দেশেরই কিছু মানুষ, বিশেষত শৈল্পিক মনের মানুষেরা ভাবে, ইশ! আমাদের দেশেও যদি এমন হতো! এইসব কলা বিজ্ঞানীরা একজন বৈজ্ঞানিকের চেয়েও বেশি বিজ্ঞান মনষ্ক! তাদের কাছে বিজ্ঞানের অনেক রকম উদাহরণ আছে, এই যেমন খুল্লামখুল্লা চলাফেরা করা, ধর্ম বিশ্বাসীদের মৌলবাদ বলে স্বিকৃতি দেয়া ইত্যাদি ইত্যাদি। তাদের কাছে এলজিবিটি যে পুন্যের কাজ হবে এই নিয়ে সন্দেহ নেই।

তো যাই হোক, এতো কথা বলবো না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এই সমাজকে খুব সহজেই ইনফ্লুয়েন্স করতে পারে। অনেক আচারেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মাধ্যমে ইফ্যাক্ট পড়ে। আর এখানে যদি পুরুষ-পুরুষ প্রেম, নারী নারী প্রেম এইসব বিষয়ে বিনদনের নামে সমকামিতা প্রচার করা হয় আর পরে বলা হয় এটা জাস্ট মোজার উদ্দেশ্যে সেয়ার দেয়া, তবে কিছু বলার নেই।

এই ইউটিবারের ব্যাপারে আসলে কিছু বলার নেই। এতো কনটেন্ট থাকতে এলজিবিটি কেন আমি বুঝি না। এটা যদি তার কাছে বিনোদনের বিষয় হয় তবে আমি বলবো তার মাথায় সমস্যা আছে।

আমি জানি না আমার এই লেখা কয়জন পড়বে। তবে আমি এটাই দাবি জানাবো যেন অবিলম্বে এই ধরনের কন্ট্যান্ট রিমোভ ও তাদের যেন সতর্ক করে দেয়া হয় যেন পরবর্তীতে এই ধরনের কন্টেন্ট আর সেয়ার করতে না পারে।

পঠিত : ৩০৩ বার

মন্তব্য: ০