Alapon

শিবির নেতারা এখন গান পাউডার দিয়ে দাঁত মাজেন

চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাত্রশিবিরের সাবেক সভাপতি মোঃ গোলাম মোস্তফা গত ১৭ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জ কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়ার সময় ১০০০ গ্রাম গান পাউডার সহ বের হচ্ছিলেন। খবর পেয়ে সাদা পোশাকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একদল চৌকশ দল জেল গেট থেকে একটি সাদা মাইক্রোতে করে তাকে উঠিয়ে নিয়ে যায়। এরপর ৯ দিন উনার কোন সন্ধান মেলেনি। সন্ধান না পেয়ে ১৯ এপ্রিল উনার পরিবার এক সংবাদ সম্মেলন করে উনার সন্ধান দাবী করেন। 
পরে ৯ দিন পরে উনাকে ২৫ এপ্রিল ৩০০ গ্রাম গান পাউডারসহ আদালতে উঠানো হয়। তবে উনার সাথে থাকা মোট ১০০০ গ্রাম গান পাউডারের পুরো হিসেব দিতে পারেনি পুলিশ। ধারনা করা হচ্ছে মোঃ গোলাম মোস্তফা এই ৯ দিন গুম হয়ে থাকার সময় দাঁতের মাজন হিসেবে গান পাউডারের ৭০০ গ্রাম ব্যাবহার করে ফেলেন। তাই উনাকে আদালতে উঠানোর সময় মাত্র ৩০০ গ্রাম গান পাউডার সহ গ্রেফতার দেখানো হয়। 
গুম করে রাখাকালীন ঠিকমত দাঁতের মাজন সরবরাহ না করায় পুলিশের উপর মানবাধিকার লঙ্ঘনের আভিযোগ উঠেছে। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই। 

প্রিয় পাঠক, আশা করি উপরের স্যাটায়ারটি আপনারা বুঝেছেন। আমাদের আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কর্মকাণ্ড কোথায় গিয়ে পৌছেছে তার একটি বাস্তব চিত্র এটি। গত ১৭ এপ্রিল চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাত্রশিবিরের সাবেক সভাপতি মোঃ গোলাম মোস্তফা  চাঁপাইনবাবগঞ্জ কারাগার থেকে জামিনে বের হওয়ার সময় সাদা পোশাকে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একদল জেল গেট থেকে একটি সাদা মাইক্রোতে করে তাকে উঠিয়ে নিয়ে যায়। এরপর ৯ দিন পরে উনাকে ২৫ এপ্রিল ৩০০ গ্রাম গান পাউডারসহ আদালতে উঠানো হয়।
 
আপনাদের বিবেকের কাছে প্রশ্ন রেখে গেলাম যে জামিনে বের হতে যাওয়া একজন মানুষের কাছে কিভাবে গান পাউডার থাকে আর কিভাবে তাকে বেআইনি ভাবে ৯ দিন গুম করে রাখা যায়। নাটকেরও একটা সীমা থাকা দরকার। সরকার বা তাদের পোষা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যদি সেটা বুঝত। 

তথ্যসূত্রঃ https://www.nacholenews.com/archives/25323

পঠিত : ৬৬১ বার

ads

মন্তব্য: ০